সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদন                       রিজার্ভ চুরি : আরসিবিসির বিরুদ্ধে মামলার পরিকল্পনায় বাংলাদেশ ব্যাংক                       উন্নয়ন টেকসই করতে নির্মল প্রবৃদ্ধিকে গুরুত্ব দিতে হবে: বিশ্বব্যাংক                       নতুন করদাতাদের বেশির ভাগের বয়স ৪০ বছরের নিচে: অর্থমন্ত্রী                       এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের চেয়ারম্যানের পদত্যাগ       

চলন্ত বাসে ধর্ষণ ও হত্যা: অভিযোগ গঠনের শুনানি ফের পেছাল

আসামিপক্ষের সময় আবেদন মঞ্জুর হওয়ায় বুধবার টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে এর শুনানি হয়নি। পরে উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালতের বিচারক আবদুল মান্নান অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য আগামী ২৯ নভেম্বর নতুন তারিখ ধার্য করেন।নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ সহকারী কৌঁসুলি (পিপি) একেএম নাছিমুল আক্তার জানান, গত ২৫ অক্টোবর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. আবদুল মান্নান অভিযোগপত্র গ্রহণ করেন। আজ বুধবার এ মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানির দিন ধার্য ছিল।আসামিপক্ষের আইনজীবী শামীম চৌধুরী আদালতে উপস্থিত ছিলেন না।তার পক্ষ থেকে আদালতকে জানানো হয় যে, তিনি আসামিদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ থেকে অব্যাহতির আবেদন করবেন। এ জন্য সময় প্রার্থনা করেন।এ সময় রাষ্ট্রপক্ষের বিশেষ সহকারী  কৌঁসুলি (পিপি) একেএম নাছিমুল আক্তার এবং বাদীপক্ষের আইনজীবী এস আকবর খান, আতাউর রহমান আজাদ সময় আবেদনের বিরোধিতা করেন।পরে উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালতের বিচারক আবদুল মান্নান অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য আগামী ২৯ নভেম্বর নতুন তারিখ ধার্য করেন।উল্লেখ্য, গত ১৩ নভেম্বরও অভিযোগ গঠন শুনানির তারিখ ছিল। কিন্তু বিচারক ছুটিতে থাকায় সেদিন শুনানি অনুষ্ঠিত হয়নি।সোমবার কারাগারে আটক এ মামলার আসামি ছোঁয়া পরিবহনের চালক হাবিবুর (৪৫), সুপারভাইজার সফর আলী (৫৫), সহকারী শামীম (২৬), আকরাম (৩৫) ও জাহাঙ্গীরকে (১৯) পুলিশ আদালতে হাজির করে।১৫ অক্টোবর পুলিশ বিচারিক হাকিম আদালতে এ মামলার অভিযোগপত্র জমা দেয়। পর দিন ১৬ অক্টোবর বিচারিক হাকিম আদালত থেকে বিচারিক আদালত নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অভিযোগপত্র পাঠানো হয়।গত ২৫ আগস্ট বগুড়া থেকে ময়মনসিংহ যাওয়ার পথে রূপা খাতুনকে চলন্ত বাসে পরিবহন শ্রমিকরা ধর্ষণ করে। পরে তাকে হত্যা করে টাঙ্গাইলের মধুপুর বন এলাকায় ফেলে রেখে যায়। পুলিশ ওই রাতেই তার লাশ উদ্ধার করে। ময়নাতদন্ত শেষে পর দিন বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় গোরস্তানে দাফন করা হয়। এ ঘটনায় অরণখোলা পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে মধুপুর থানায় মামলা করেন।রূপার ভাই ২৮ আগস্ট মধুপুর থানায় এসে লাশের ছবি দেখে রূপাকে শনাক্ত করেন। পরে পুলিশ ছোঁয়া পরিবহনের চালক হাবিবুর, সুপারভাইজার সফর আলী  ও শামীম, আকরাম ও জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতার করে। পুলিশের কাছে তারা রূপাকে ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার করে। ২৯ আগস্ট বাসের তিন সহকারী  শামীম, আকরাম, জাহাঙ্গীর এবং ৩০ আগস্ট চালক হাবিবুর ও সুপারভাইজার সফর আলী আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।তারা সবাই এখন টাঙ্গাইল কারাগারে আছে। ৩১ আগস্ট রূপার লাশ উত্তোলন করে তার ভাইয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

 


  • ক্রাইমনিউজবিডি.কম

    © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
    সম্পাদক ও প্রকাশক:
    মোঃ গোলাম মোস্তফা
    সুইট -১৭, ৫ম তলা, সাহেরা ট্রপিক্যাল সেন্টার,
    ২১৮ ডঃ কুদরত-ই-খোদা রোড,
    নিউ মার্কেট ঢাকা-১২০৯।
    মোবাইল - ০১৫৫৮৫৫৮৫৮৮,
    ই-মেইল : mail-crimenewsbd2013@gmail.com

    এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি
    অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও
    প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

  • গুরুত্বপূর্ণ লিঙ্ক

  • সামাজিক মাধ্যম