বলিউডে শাকিব খান?                       অটল বিহারী বাজপেয়ির মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক                       নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে সংসদ নির্বাচনের তফসিল                       বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন                       প্রতারক এজেন্সিগুলোর চক্রে পড়ে হজে যেতে পারলেন না ৬০৬ জন       

সমস্যা জর্জরিত বৰব্যাধি হাসপাতাল

রাজশাহীর বৰব্যাধি (টিবি) হাসপাতালে দেশের উত্তর ও পশ্চিম অঞ্চলের এক চতুর্থাংশ জনগোষ্ঠির বৰব্যাধি সংক্রান্ত রোগের চিকিৎসা প্রদান করা হয়। কিন্তু ৫২ বছর ধরে জর্বরি (ঝুঁকিপূর্ণ) রোগী পরিবহনের জন্য সেখানে কোন অ্যাম্বুলেন্স ব্যবস্থা নেই। এছাড়াও আলট্রাসনোগ্রাম মেশিন, অটোএনালাইজার মেশিন সেখানে নেই। এতে করে মুমূর্ষু রোগীদের নিয়ে বিপাকে পড়তে হয় হাসপাতাল কর্তৃপৰকে। তবে হাসপাতালটিতে বৰব্যাধি রোগের আধুনিক ও উন্নতমানের চিকিৎসাসেবা প্রদানের লৰ্যে জর্বরি পরিবহন ও যন্ত্রপাতিসহ প্রয়োজনীয় একটি প্রস্তাবনা প্রেরণ করা হয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে।
রাজশাহী বৰব্যাধি হাসপাতাল-এর সুপারিনটেনডেন্ট ডাঃ মো: আমীর হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, হাসপাতালটিতে রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগের বিভিন্ন জেলার প্রত্যন্ত এলাকা থেকে রোগীরা সেখানে চিকিৎসা নিতে আসেন। প্রতিদিন গড়ে ১৬০ জনের অধিক নারী-পুর্বষ রোগী আন্তঃ বিভাগে ভর্তি থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এখানে যক্ষ্মা, এমডিআর যক্ষ্মা ছাড়াও ফুসফুসের রোগ-ইৎ. অংঃযসধ. ঈযৎ. ইৎড়হপযরবপঃধৎরং, ঈঙচউ, ওখউ ইত্যাদি রোগসহ ডায়াবেটিস, হার্টের এবং হাইপারটেনশন রোগের চিকিৎসা প্রদান করা হয়। উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলের প্রায় এক চতুর্থাংশ মানুষ এখানে চিকিৎসা গ্রহণ করে থাকেন। ২০০৮ সালে গউজ-ঞই জঞখ ( জবমরড়হধষ ঞঁনবৎপঁষড়ংরং জবভবৎবহপব খধনড়ৎঃড়ৎু) স্থাপন করা হয়। এখানে রোগ নির্ণয়ের জন্য প্যাথলজি, ডিজিটাল এঙ-রে, ইসিজি, জিন এঙপার্ট সুবিধাও রয়েছে। কিন্তু জর্বরি (ঝুঁকিপূর্ণ) রোগী পরিবহনের জন্য কোন অ্যাম্বুলেন্স ব্যবস্থা নেই। এছাড়াও রোগীদের জন্য প্রয়োজনীয় আলট্রাসনোগ্রাম মেশিন, অটোএনালাইজার মেশিনও সেখানে নেই। টিবি রোগ সংক্রামক হওয়ায় অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া পেতে বেগ পেতে হয়। এ কারণে ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হয় রোগী ও অভিভাবকদের।
১৯৯৮ সালে যক্ষ্মা হাসপাতালকে বৰব্যাধি হাসপাতালে রূপান্তর করা হয়। বর্তমানে হাসপাতালটিতে জনবল ১৮৮ জন, ওয়ার্ড হচ্ছে ৬টি। বৃহত্তর উত্তর বঙ্গের জনসাধারণের যক্ষ্মা রোগের উন্নত চিকিৎসার জন্য শুর্বতে বেড সংখ্যা ছিল ১০০ শয্যার। ১৯৭২ সালে ১০০ শয্যা থেকে ১৫০ শয্যায় উন্নীত হয়। ১৯৬৬ সালে রাজশাহী শহরের প্রাণকেন্দ্রে লক্ষ্মীপুর সংলগ্ন এলাকায় সবুজ ঘেরা মনোরম পরিবেশে ২৪.৫১৮৫ একর জমিতে হাসপাতালটি যাত্রা শুর্ব করে।
টিবি (যক্ষ্মা) বাংলাদেশের একটি অন্যতম প্রধান জনস্বাস্থ্য সমস্যা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) এর ২০১৭ সালে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় ৩ লাখ ৬০ হাজার মানুষ নতুনভাবে এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। এছাড়াও প্রতিবছর ৬৬ হাজারেরও বেশী মানুষ এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। যক্ষ্মা একটি জীবাণুঘটিত সংক্রামক রোগ। এটি বাতাসের মাধ্যমে, একই পাত্রে খাওয়া-দাওয়ার মাধ্যমে বা রোগীর মুখে র্বমাল না দিয়ে হাঁচি-কাশি থেকে এ রোগ হতে পারে। তবে একবার চিকিৎসার আওতায় আসলে এটি আর ছোঁয়াচে থাকে না। ২০১৭ সালে ২,৪৪,২০১ জন বিভিন্ন ধরনের যক্ষ্মা রোগী শনাক্ত হয়েছে। তবে বিশ্বে দীর্ঘ ৫০ বছর পর নতুন দুটি অধিক কার্যকর ওষুধ যক্ষ্মা রোগের জন্য যুক্ত হয়েছে। একটি ‘বিডাকুইলিন’ অপরটি ‘ডিলামিনিড’। বাংলাদেশেও ওষুধ দুটির নিয়ন্ত্রিত প্রয়োগ শুর্ব হয়েছে। এছাড়াও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) অনুমোদিত ৯ মাসের একটি স্বল্পমেয়াদী চিকিৎসা ব্যবস্থা চালু হয়েছে। আগে যেখানে সময় লাগত ২০ থেকে ২৫ মাস।
হাসপাতাল সুপারিনটেনডেন্ট আরো বলেন, রাজশাহী বৰব্যাধি হাসপাতালকে বৰব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল হিসেবে রূপান্তর করা প্রয়োজন। বর্তমান জনবল নিয়েই তা সম্ভব। এতে করে যক্ষ্মা রোগী শনাক্তকরণ ও অন্যান্য বৰব্যাধি চিকিৎসা প্রদান করা সহজ হবে। চিকিৎসকদের পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন কোর্স চালু এবং প্রশিৰণ প্রদান করা যাবে। বৰব্যাধি বিশেষজ্ঞ, নার্স এবং মাঠকর্মীদের প্রশিৰণ প্রদান করা সহজ হবে। বৰব্যাধির ওপর গবেষণার সুযোগ সৃষ্টি হবে। বৰব্যাধি রোগের অস্ত্রোপচার করার সুযোগও সৃষ্টি হবে। এ বিষয়ে একটি প্রস্তাবনা সংশিৱষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

 
 


  • ক্রাইমনিউজবিডি.কম

    © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
    সম্পাদক ও প্রকাশক:
    মোঃ গোলাম মোস্তফা
    সুইট -১৭, ৫ম তলা, সাহেরা ট্রপিক্যাল সেন্টার,
    ২১৮ ডঃ কুদরত-ই-খোদা রোড,
    নিউ মার্কেট ঢাকা-১২০৯।
    মোবাইল - ০১৫৫৮৫৫৮৫৮৮,
    ই-মেইল : mail-crimenewsbd2013@gmail.com

    এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি
    অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও
    প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

  • গুরুত্বপূর্ণ লিঙ্ক

  • সামাজিক মাধ্যম